মঙ্গলবার, মে ২১, ২০২৪
প্রচ্ছদজাতীয়ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীকে হুমকি: বুয়েটেরে শিক্ষকের ৭ বছরের কারাদণ্ড

ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীকে হুমকি: বুয়েটেরে শিক্ষকের ৭ বছরের কারাদণ্ড

আদালত প্রতিনিধিঃ (বিডি সময় ২৪ ডটকম)

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হুমকি দানকারী বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রভাষক হাফিজুর রহমান রানাকে সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার ‍দিকে মহানগর দায়েরা জজ মো. জহুরুল হক জনাকীর্ণ আদালতে এ রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্ত হাফিজুর রহমান বর্তমানে পলাতক রয়েছেন।

২০১২ সালে শিক্ষক হাফিজুর রহমান রানা ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস লেখেন। ওই লেখা প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করেই লেখা হয়েছে- এমন ধারণা থেকে গত বছরের ২৪ এপ্রিল বাংলাদেশ জননেত্রী পরিষদ নামের একটি সংগঠনের সভাপতি এ বি সিদ্দিকী প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা চেয়ে শাহবাগ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

জিডিতে তিনি উল্লেখ করেন, বুয়েটের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক হাফিজুর রহমান রানা সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি দিয়ে একটি স্ট্যাটাস দেন। তাতে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি লেখেন, ‘হায়েনা, ওই হায়েনা তুই দেশকে খেয়েছিস, এখন বুয়েটকে খাবি… পারবি না। আমরা বুয়েটের শিক্ষক ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা হলাম শিকারি। প্রথমে তোর মাথায় গুলি করব, পরে পেটে। তারপর মাথা কেটে বুয়েটের সামনে টানিয়ে রাখব। যাতে আর কোনো হায়েনার আক্রমণে বুয়েট আক্রান্ত না হয়।’

ওই জিডির বিষয়ে ইন্সপেক্টর বিপ্লব কিশোর শীল তদন্তের অনুমতি চেয়ে গত ২৪ এপ্রিল আদালতে আবেদন করেন। সিএমএম আদালত বিষয়টি স্পর্শকাতর ও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় ৪৮ ঘণ্টা পর আদালতে এ ব্যাপারে তদন্ত করে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

পরবর্তীতে শাহবাগ থানা থেকে অভিযোগটি তদন্তের জন্য গত ২৫ এপ্রিল ঢাকা মহানগর গেয়েন্দার অপরাধ বিভাগের সহকারী পুলিশ কমিশানারের (সাইবার) মাধ্যমে তদন্তের জন্য পাঠানো হয়। তাদের তদন্তের পর ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় গত ১৭ জুন শাহবাগ থানার ইন্সপেক্টর বিপ্লব কিশোর শীল একটি নন-এফআইআর মামলা দায়ের করেন।

গত ১৮ জুন তথ্যপ্রযুক্তি আইন ২০০৬ এর ৫৭(১) ধারা এবং দণ্ডবিধির ৫০৬ ধারায় হাফিজুর রহমান রানার বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ