বুধবার, নভেম্বর ২৯, ২০২৩
প্রচ্ছদতথ্য-প্রযুক্তিপ্রযুক্তিতে যেমন বাজেট চাই

প্রযুক্তিতে যেমন বাজেট চাই

TVবর্তমান সরকারের শেষ বাজেটের আকার হবে দুই লাখ ২৪ হাজার কোটি টাকা। অর্থমন্ত্রণালয় নতুন বাজেটের যে রূপরেখা চূড়ান্ত করেছে তাতে বলা হয়েছে, এবার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) হবে ৬৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকার। আর সামগ্রিক ঘাটতি ধরা হবে ৫৬ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। বাজেটে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হবে ৭ দশমিক ২ শতাংশ। চলতি বাজেটেও একই লক্ষ্যমাত্রা ধরা আছে। গড় মূল্যস্ফীতি ৭ শতাংশে নামিয়ে আনারাও ঘোষণা দেয়া হবে। আগামী ৬ জুন জাতীয় সংসদে মহাজোট সরকারের শেষ বাজেট পেশ করবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।  এরই মধ্যে শুরু হয়েছে বাজেট নিয়ে নানা আলোচনা। বর্তমান সরকারের পঞ্চম এ বাজেটে তথ্যপ্রযুক্তি খাতকে কেমন দেখতে চান, তা জানতে চাওয়া হয়েছিল বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি-সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তিদের কাছ থেকে।

বেসিস
বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস
আসন্ন বাজেটে জাতীয় আইসিটি নীতিমালা ২০০৯-এ বর্ণিত তথ্যপ্রযুক্তি শিল্প উন্নয়ন তহবিল গঠনের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ৭০০ কোটি টাকার অন্তত্য ১০ শতাংশ অর্থাৎ ৭০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখার প্রস্তাব রাখেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস ( বেসিস)। এছাড়া তথ্যপ্রযুক্তি শিল্প উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ গঠন, দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি, ইন্টারনেট ব্যবহারে ১৫ শতাংশ ভ্যাট কমানো, অনলাইন ব্যবসার প্রসার এবং জনপ্রিয়করণে প্রাথমিকভাবে আগামী ৩ থেকে ৫ বছরের জন্য ই-কমার্সের সকল লেনদেনে মূসক প্রত্যাহার সহ প্রয়োজনীয় অন্যান্য বিষয় উল্লেখ করা হয়। বর্তমানে যে সমস্ত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সরকারকে বছরে ৫০ লাখ টাকা কিংবা তার বেশি ভ্যাট দিয়ে থাকে সেসব প্রতিষ্ঠানকে অবিলম্বে ভ্যাট ব্যবস্থাপনা অটোমেশনের আওতায় আনতে মন্ত্রীকে অনুরোধ জানান তারা।

সরকারের মূখ রক্ষা করার জন্য হলেও ইন্টারনেটের উপর অর্পিত ভ্যাট প্রত্যাহার করা উচিত
মোস্তাফা জব্বার
প্রযুক্তিবিদ ও পরিচালক বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি
এবার সরকারের মূখ রক্ষা করার জন্য হলেও ইন্টারনেটের উপর অর্পিত ভ্যাট প্রত্যাহার করা উচিত। শিহ্মা ব্যবস্থাকে ডিজিটাল করার লক্ষে সরকারের যে উদ্দ্যেগ ডিজিটাল ক“াস রুমের জন্য যে সব সরঞ্জাম লাগবে তার উপর ধার্য করা ভ্যাট প্রত্যাহার না করলে এর কাজের অগ্রগতি হবে না বলে আমি মনে করি। আমরা বিগত বছর গুলোতে সরকারের কাছে বলেছি, ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর থেকে যে ১৫% ভ্যাট আছে তা মওকুফ করা। অর্থমন্ত্রী ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর থেকে ভ্যাট প্রত্যাহারের বিষয়ে একমত হয়ে আসছেন। সংসদীয় কমিটিসহ সবাই এই সুপারিশকে সমর্থন করেছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর থেকে শতকরা ১৫ ভাগ থেকে ১ শতাংশও ভ্যাট কমেনি। যা ডিজিটাল বাংলাদেশ তৈরীর হ্মেত্রে একটি বড় বাধা। এর মাঝে সরকারের নিজের রূপান্তর, সরকারি মন্ত্রণালয়, থ্রি-জি প্রযুক্তি, ডিজিটাল ভূমি ব্যবস্থা, ডিজিটাল শিক্ষা ব্যবস্থা, সর্বজনীন সংযুক্তি, জনগণের দোরগোড়ায় সেবা  পৌঁছানো এসবকে প্রাধান্য দিতে হবে। মূল কথা আমরা এর আগের বাজেটগুলোতে যে সব চেয়েছি তার প্রতিফলন হলেই আইটি সেক্টরের উন্নতি হবে।

৭০০ কোটি টাকা বরাদ্দ থাকার কথা খাকলেও বাজেটে কমপক্ষে এর ১০ শতাংশের বরাদ্দ চাই
মাহাবুব জামান
সাবেক সভাপতি,
বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস ( বেসিস)
আইসিটি নীতিমালায় আইসিটি শিল্প উন্নয়ন তহবিল হিসেবে ৭০০ কোটি টাকা বরাদ্দ থাকার কথা খাকলেও তা এখন পর্যন্ত বাস্তবায়ন হয়নি এটি দু:থ জনক। আমরা এ বছরের বাজেটে কমপক্ষে এর ১০ শতাংশের বরাদ্দ চাই। আর আইটি পার্ককে কার্যকর করার সুষ্ঠু নীতিমালা এ বছরের বাজেটেই থাকা উচিত। আইটি সেক্টরের জন্য নির্দিষ্ট কোন ক্যাটাগরি নাই । এখন যে ক্যাটাগরিতে কাজ করি সেটা হল সরবরাহকারি বা কনসালটেন্ট হিসেবে। অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মত আইটি খাতের ও নির্দিষ্ট ক্যাটাগরি দরকার। ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি, ইন্টারনেট ব্যবহারে ১৫ শতাংশ ভ্যাট কমানো, তথ্যপ্রুযক্তিতে ব্যবহারিত সকল জিনিষের উপর অর্পিত ভ্যাট মওকুফ করতে হবে।

বাজেট তথ্যপ্রযুক্তি বান্ধব হতে হবে
ফয়েজ উল্ল্যাহ খান
সভাপতি,
বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি
আমাদের এবারের বাজেট তথ্যপ্রযুক্তি বান্ধব হতে হবে। ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে এর উপর গুরত্ব দেয়া উচত। ২২” থেকে ২৭’’ মনিটরের উপর যে ভ্যাট আছে তা প্রত্যাহার করতে হবে। আইটি সেক্টর এবং শিক্ষা ক্ষেত্রে  যতগুলো আইটি প্রোডাক্ট আছে সবগুলোর শুল্ক মুক্ত করতে হবে। আমাদের কমিউনিকেশন্স বাড়ানোর জন্য শুল্ক মুক্ত করা জরুরী। আইসিটি পলিসিতে যে ৭০০ কোটি টাকার বরাদ্দ দেয়ার কথা বিগত বাজেটে বার বার বলার পরও ও তা দেয়া হয়নি। এবার যেন ৭০০ কোটি টাকার ১০% বা ৭০ কোটি টাকা এবারের বাজেটে বরাদ্দ দেয়া হয় সে ব্যপারে সরকার যেন জোর দেয়।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ