মঙ্গলবার, মে ২১, ২০২৪
প্রচ্ছদসারা বিশ্বফের বিয়ের কোনো ইচ্ছা নেই পুতিনের

ফের বিয়ের কোনো ইচ্ছা নেই পুতিনের

Vladimir Putin and his wife crossing themselves in Moscowস্ত্রী লুদমিলার সাথে দীর্ঘ ৩০ বছররের সম্পর্কের ইতি টানার ঘোষণা দিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তবে তিনি জানিয়েছেন, পুনরায় বিয়ে করার কোনো ইচ্ছা তার নেই। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট হিসেবে তার উপর যে দায়িত্ব তা পালনের মধ্য দিয়েই সময় কাটাবেন। শুক্রবার পুতিনের মুখপাত্র এ তথ্য জানান।

বৃহস্পতিবার এক টিভি অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে পুতিন-লুদমিলা জানিয়েছেন, এই শেষ পাশাপাশি। শেষ হয়ে গেছে তাদের বৈবাহিক সম্পর্ক। বহু দিন আগে ইতালি সফরে গিয়ে পুতিন এই অস্বস্তিকর প্রশ্নের মুখে পড়েন, “শোনা যায় আপনারা স্বামী-স্ত্রী নাকি একস  থাকেন না?”  জবাবে পুতিন বলেন, “এক বিন্দুও সত্যি নয়। যারা অন্যের ব্যক্তিগত বিষয়ে নাক গলায়, নিজেদের উদ্ভট যৌন কল্পনা অন্যের জীবনে জুড়ে দেয়, তাদের সাথে ভদ্রতা করি না।”  বৃহস্পতিবার যখন সেই একই প্রশ্নের সম্মুখীন হলেন প্রেসিডেন্ট, পুরনো সেই ক্ষিপ্রতার লেশমাত্র নেই। বরং ষাটের কোঠার প্রবীণ রাজনীতিক নিচু স্বরে বললেন, “এটা সত্যি।”

 ক্রেমলিন প্যালেসের ব্যালে অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার পর একটি টিভি চ্যানেলের শোয়ে মুখোমুখি হয়েছিলেন পুতিন ও তার সদ্য ঘোষিত প্রাক্তন স্ত্রী লুদমিলা। ক্ষণিকের নিস্তব্ধতা ভেঙে লুদমিলা জানালেন, দু’জনে একে অপরের সম্মতিতেই এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন। তার কথায়, “আমাদের দেখা হয় না বললেই চলে। তাই বৈবাহিক সম্পর্ক শেষ করার সিদ্ধান্তই নিলাম।” তবে খাতায় কলমে এখনো বিচ্ছেদ হয়নি। ৩০ বছর আগে ভ্লাদিমিরের সাথে বিয়ে হয়েছিল লুদমিলার। দুই কন্যা, দু’জনেই কুড়ি পেরিয়েছে।

 প্রথমবার প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর, প্রায় সব সফরেই ভ্লাদিমির লুদমিলাকে নিয়ে যেতেন। কিন্তু পরে আর স্ত্রীকে দেখা যায়নি। কানাঘুষো শোনা গিয়েছিল, এক ত্রিশের কোঠার জিমন্যাস্ট আলিনা কাবাইভার সঙ্গে প্রেম চলছে প্রেসিডেন্টের। টিভি চ্যানেলের স্টুডিওতেও অনুচ্চারিত রইল আলিনার নাম।

 পুতিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেন, পুতিন ফের বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হবেন- এমন গুজব শোনা যাচ্ছে। তবে এগুলো কল্পকাহিনী ছাড়া আর কিছুই নয়।

 পেসকভ ইকো মস্কভি রেডিওকে বলেন, ‘একজন অশিক্ষিত লোকও যদি পুতিনের কর্মতালিকা খেয়াল করেন তাহলে তিনি বুঝতে পারবেন যে, পারিবারিক বিষয়ে খোঁজ রাখার মতো কোনো সময় নেই।’

 পেসকভ একইসাথে সাংবাদিকদের পুতিনের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে অযাচিত হস্তক্ষেপের ব্যাপারে হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন। সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ