সোমবার, এপ্রিল ২২, ২০২৪
প্রচ্ছদচট্রগ্রাম প্রতিদিন৫মাসেও ধরা পড়েনি চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ নেতা জনির হত্যাকারীরা

৫মাসেও ধরা পড়েনি চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ নেতা জনির হত্যাকারীরা

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক আবদুল মালেক চৌধুরী জনি’র হত্যাকারীরা আত্বীয়স্বজন ও দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতিনিয়ত হুমকি দিচ্ছে অভিযোগ পাওয়া গেছে। হত্যাকান্ডের ৫ মাস অতিবাহিত হতে চললেও পুলিশ এখন পর্যন্ত কোন আসামীকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। হত্যাকারীরা সর্বশেষ গত ১৭ মার্চ দিবাগত রাত ১২.৩৫ মিনিটে জনি’র ঘনিষ্ট আত্বীয় বাঁশখালী সাধনপুর ইউপি চেয়ারম্যান, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার ও আওয়ামীলীগ নেতা খোন্দকার মোহাম্মদ ছমিউদ্দীন এর মোবাইলে কল করে হত্যার হুমকি প্রদান করে। হত্যাকারীরা অবিলম্বে ‘জনি হত্যা মামলা’ প্রত্যাহার করতে বলে এবং এ মামলার বিষয়ে থানা/কোর্টে কোন ধরনের চেষ্টা করা হলে তাঁকে প্রাণে মেরে ফেলা হবে বলে হুমকি প্রদান করে। এ বিষয়ে তিনি নগরীর চান্দগাঁও থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী (নং-৮১৬) করেছেন। এর আগে হত্যাকারীরা যুবলীগ, ছাত্রলীগ এর বিভিন্ন নেতাকর্মী ও মামলার বাদীকে হত্যার হুমকি প্রদান করে। হত্যাকারীদের হুমকিতে আত্বীয়স্বজন ও দলীয় নেতাকর্মীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

থানায় আসামীদের জমা দেওয়া কাগজপক্র দেখে জানা গেছে, আবু শাহাদত মো. সায়েম প্রকাশ ডাকাত শাহাদত, মহিউদ্দিন মহি, আবু জাহেদ,মো. শামীম ও কফিল উদ্দিন গত ১৪ মার্চ বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি শেখ মো: জাহাঙ্গীর হোসাইন এর ব্যঞ্চ থেকে ৪ সপ্তার আগাম জামিন পান এই মর্মে একটি কপিও তারা কোতয়ালী থানায় জমা দেন কিন্তু উচ্চ আদালতের ওয়েব সাইড এবং নথি দেখে বাদি পক্ষ নিশ্চিত হন ঐদিন আসামীরা কোন প্রকার জামিন পায়নি এবং তাদের মামলার শুনানীও হয়নি। তারা জালিয়াতির মাধ্যমে ভূয়া কাগজ পত্র থানায় জমা দেন।

আসামীরা উচ্চ আদালতের জামিনের মিথ্যা কাগজ তৈরী করে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও পুলিশ আসামীদের ধরছেন না বলে মামলার বাদি অভিয়োগ করেছেন। তিনি বলেন, ৫জন আসামী উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়েছেন মর্মে ভুয়া কাগজ পত্র থানায় জমা দিয়ে এলাকায় প্রকাশ্যে ঘুরে বেডাছে এবং আমাকে এবং আমার আত্বীয়স্বজন ও দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতিনিয়ত হুমকি দিচ্ছে। আমরা আসামীদের অবস্থন নিশ্চিত করার পরও অজ্ঞাত কারণে পুলিশ কোন অভিযানে যাচ্ছেনা।

জনির নিকট আতœীয় ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য ফখরুল ইসলাম চৌধুরী পরাগ বলেন, জনি হত্যাকারীদের এখনো গ্রেফতার করতে না পারাকে প্রশাসনের গাফিলতি বলে মনে করি। সরকার দলীয় একজন ছাত্রনেতা হত্যার বিচার যদি না হয়, আসামী গ্রেফতার না হয় তাহলে সাধারণ মানুষ কিভাবে বিচার আশা করবে। সুনিদিষ্ট আসামী থাকার পরও কেন পুলিশ আসামীদের গ্রেফতার করছেন না তা আমাদের বোধগম্য নয়। মাননীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর কঠোর নির্দেশ শর্তেও কেন আসামীদের গ্রেফতার করা হচ্ছেনা? তাহলে কি আসামীরা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর চেয়েও শক্তিশালী?  দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ এর যুগ্ম আহবায়ক সালাউদ্দীন সাকিব ও মো. নূরুল আমিন আসামী গ্রেপ্তারে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলে বলেন হত্যাকান্ডের ৩ মাস অতিবাহিত হতে চললেও পুলিশ এখন পর্যন্ত কোন আসামীকে গ্রেপ্তার না করা রহস্যজনক। তারা বলেন ইতোমধ্যে আমরা মামলার বাদী জনির ছোট ভাই আবদুল মাজেদ চৌধুরী রুবেলসহ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর সাথে দেখা করে স্মারকলিপি দিয়েছি। তাঁরা দ্রুত আসামী গ্রেপ্তারের আশ্বাস প্রদান করেছেন। উল্লেখ্য গত ০৪ জানুয়ারী সকাল ১০ টার আন্দরকিল্লাস্থ চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগ অফিসে ছাত্রলীগ এর ৬৪ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচী পালনের সময় ছিল ২০/২৫ জন সন্ত্রাসী আগ্নেয়াস্ত্র, লোহার রড, হকিষ্টিক, চাপাতি ও মোটা লাঠি হাতে অফিসে প্রবেশ করিয়া ছাত্রলীগের আহবায়ক জনিকে হামলা করে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওঈট তে চিকিৎসাধীন খাকাবস্থায় ০৮ জানুয়ারী রাত ৯ টায় জনি মূতে্যুবরণ করে। ঘটনার পরদিন জনি’র ছোট ভাই আবদুল মাজেদ চৌধুরী রুবেল বাদী হয়ে ৯ (নয়) জনের নাম উল্লেখ করে নগরীর কোতয়ালী থানায় একটি মামলা (নং-০৬, তাং-০৫.০১.১৩) দায়ের করেছেন। মামলার আসামীরা হলেন- ১. আবু শাহাদত মো. সায়েম প্রকাশ ডাকাত শাহাদত (৩০), পিতা মৃত আনোয়ার, সাং- মনসা, পটিয়া ২. ফরহাদুল আলম (২৮), পিতা- মৃত নুরুল আমিন, সাং- পালেগ্রাম, বাঁশখালী ৩. মহিউদ্দিন মহি (২৯), পিতা- আবুল হাশেম, সাং- কুসুমপুরা, পটিয়া ৪. আবু জাহেদ (২৬), পিতা- কামাল উদ্দিন, সাং- আহলা, বোয়ালখালী ৫. মো. শামীম (২৭), পিতা- আহমদ হোসেন প্রকাশ মাহাবু, সাং- মনসা, পটিয়া ৬. মনির উদ্দিন প্রকাশ জঙ্গল মনির (৩২), পিতা- আবুল কাশেম প্রকাশ বুলু, সাং- বিনিনিহারা, পটিয়া ৭. কফিল উদ্দিন (২৬), পিতা- আবু সৈয়দ, সাং- মালপুকুরিয়া ভবানীপুর, বড় হাতিয়া, লোহাগাড়া ৮. মো. দোবান প্রকাশ নোমান (২৪), পিতা- মো. তৈয়ব, সাং- পালেগ্রাম, বাঁশখালী ৯. মো. ফারুক (৪২), পিতা- মৃত কবির আহম্মদ, সাং- মোহাম্মদ নগর, পটিয়া, সর্বজেলা- চট্টগ্রাম এবং আরো অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জন।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ