রবিবার, মে ১৯, ২০২৪
প্রচ্ছদখেলার সময়মুম্বাই পেল প্রথম ট্রফি জয়ের স্বাদ

মুম্বাই পেল প্রথম ট্রফি জয়ের স্বাদ

Mumbi-IPLশচীন টেন্ডুলকার সাইড লাইনে বসে ছিলেন টেন্ডন ইনজুরি নিয়ে। বাউন্ডারি লাইনের এত কাছে ছিলেন দেখে যে কারও মনে হবে এই বুঝি উঠে এলেন মাঠ থেকে। একাদশে না থেকেও শচীন টেন্ডুলকার জিতলেন আইপিএল শিরোপা। টুর্নামেন্টের ষষ্ঠ আসরের ফাইনালে চেন্নাই সুপার কিংসকে ২৩ রানে হারিয়ে শচীনের মুম্বাই পেল প্রথম ট্রফি জয়ের স্বাদ।

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স: ১৪৮/৯ (২০ ওভার)
চেন্নাই সুপার কিংস: ১২৫/৯ (২০ ওভার)
ফল: মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ২৩ রানে জয়ী

২০১০ সালে এই চেন্নাই সুপার কিংসের কাছে ফাইনালে হেরেছিল মুম্বাই। পরের দুই মৌসুম চতুর্থ এবং তৃতীয় স্থানে শেষ হয় তাদের অভিযান। কিন্তু মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে চেন্নাই টানা চতুর্থ ফাইনাল খেলে হারলো শেষ দুটিতে। আইপিএলের ছয় আসরে পাঁচবার ফাইনাল খেলে তিনবারের রানার্সআপ চেন্নাই (২০০৮, ২০১২ ও ২০১৩)। চ্যাম্পিয়ন হয় ২০১০ এবং ২০১১ মৌসুমে।

কলকাতা ইডেন গার্ডেনে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ১৪৮ রান করে নয় উইকেটে। তাদের ইনিংসে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ স্কোর বলতে কাইরান পোলার্ডের ৩২ বলে খেলা ৬০ রান। এই ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যানের ইনিংসে চ্যালেঞ্জিং স্কোর পায় মুম্বাই। পোলার্ডের ঝড়ো অজেয় ইনিংসে সাতটি চার ও তিনটি ছয়ের মারও রয়েছে। এছাড়া আম্বাতি রাওডুর ৩৬ বলে ৩৭ এবং দিনেশ কার্তিক ২৬ বলে ২৪ রানই পর্যায়ক্রমে সেরা।

চেন্নাইয়ের ডোয়াইন ব্রাভো চার ওভারে ৪২ রান দিয়ে নিয়েছেন চার উইকেট। এছাড়া আলবে মর্কেল তিন ওভারে ১২ রান দিয়ে পেয়েছেন দুই উইকেট। একটি করে উইকেট পেয়েছেন মোহিত শর্মা ও ক্রিস মরিস।

ওভারে সাড়ে সাত রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে গিয়ে প্রথম থেকে উইকেট হারায় চেন্নাই সুপার কিংস। মাইলেক হাসি ও সুরেশ রায়নাকে সাজঘরে ফেরান লাসিথ মালিঙ্গা। এরপর বাদরিনাথ মিচেল জনসনের শিকার হলে তিন রানে তিন উইকেট হারিয়ে টালমাটাল চেন্নাই। দুই পেসার ভালো শুরু দেওয়ায় বাকি কাজটা সহজ হয় মুম্বাইয়ের জন্য। ঋষি ধাওয়ান তুলে নেন ডোয়াইন ব্রাভোর উইকেট। রবীন্দ্র জাদেজা ও ক্রিস মরিসকে হরভজন সিং, মুরালি বিজয়কে জনসন, মর্কেলকে ওঝা এবং অ্যাশউইনকে পোলার্ড ফিরিয়ে দিলে মুম্বাইয়ের জয় সময়ের ব্যবধান হয়ে দাঁড়ায়। মহেন্দ্র সিং ধোনি ৬৩ রানের প্রতিরোধ গড়ে তুলে পরাজয় ব্যবধান কমান। ২০ ওভারে নয় উইকেট হারিয়ে ১২৫ রানে যেতে পারে চেন্নাই।

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের পেসার মালিঙ্গা, জনস্টন এবং স্পিনার হরভজন সিং দুটি করে উইকেট পেয়েছেন। একটি করে উইকেট শিকার করেন ওঝা, ধাওয়ান ও পোলার্ড।

অসাধারণ ব্যাটিং ইনিংস এবং বোলিং ও ফিল্ডিং পরফরমেন্স মূল্যায়নে নিয়ে ফাইনালের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার দিয়েছে কাইরান পোলার্ডকে।

আইপিএল চ্যাম্পিয়ন-রানার্সআপ

সাল:

চ্যাম্পিয়ন

রানার্সআপ

২০০৮

রাজস্থান রয়্যালস

চেন্নাই সুপার কিংস

২০০৯

ডেকান চার্জার্স

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু

২০১০

চেন্নাই সুপার কিংস

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স

২০১১

চেন্নাই সুপার কিংস

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালরু

২০১২

কলকাতা নাইট রাইডাস

চেন্নাই সুপার কিংস

২০১৩

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স

চেন্নাই সুপার কিংস

আরও পড়ুন

সর্বশেষ