সোমবার, মে ২৭, ২০২৪
প্রচ্ছদটপউদ্ধার অভিযান শেষ, ৬ নাবিককে পাওয়া যায়নি

উদ্ধার অভিযান শেষ, ৬ নাবিককে পাওয়া যায়নি

ষ্টাফরিপোর্টার (বিডিসময়২৪ডটকম)

ফুকেট উপকূলে চার দিনেও এমভি হোপের ছয় নাবিকের সন্ধান না পেয়ে উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করেছে থাই রয়্যাল নেভি।

ওই জাহাজের ১৭ বাংলাদেশি নাবিকের মধ্যে জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে নয়জনকে। তাদের মধ্যে পাঁচজন রবিবার চট্টগ্রামে পৌঁছেছেন।

নেভাল সিভিল অ্যাফেয়ার্স বিভাগের পরিচালক ক্যাপ্টেন থামাওয়াত মালাইসুকারিনকে উদ্ধৃত করে স্থানীয় ফুকেট গেজেট জানায়, গত দুই দিনে নতুন করে কাউকে না পাওয়ায় উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে।

এখন আন্দামান সাগরে কাত হয়ে যাওয়া বাংলাদেশি জাহাজ এমভি হোপকে উদ্ধারের কাজ চলছে।

উদ্ধার অভিযান শেষ হওয়ায় জাহাজের ক্যাপ্টেন রাজীব চন্দ্র কর্মকার, দ্বিতীয় প্রকৌশলী মো. নেজাম উদ্দিন, ইলেকট্রিশিয়ান ছাদিম আলী, কেবি নাসির উদ্দিন, আলী হোসেন এবং প্রধান কুক নাসির উদ্দিনকে জীবিত উদ্ধারের আর কোনো আশা থাকল না।

গত বৃহস্পতিবার ভোরে উত্তার সাগরে প্রবল বাতাসে কাত হয়ে ডুবতে বসে সিরামিক শিল্পের কাঁচামাল ‘বল ক্লে’ বহনকারী বাংলাদেশি জাহাজ এমভি হোপ।

প্রাণ বাঁচাতে জাহাজের ১৭ নাবিকের মধ্যে কয়েকজন লাইফ বোট নিয়ে সাগরে ভেসে পড়েন। বাকিরা লাইফ জ্যাকেট নিয়েই সাগরে ঝাঁপ দেন।

থাই রয়্যাল নেভির হেলিকপ্টার বৃহস্পতিবার আবু বকর সিদ্দিক নামের এক ডেক ক্যাডেটকে সাগর থেকে উদ্ধার করে ফুকেটের একটি হাসপাতালে পাঠায়। আর লাইফ বোট থেকে পাঁচজনকে উদ্ধার করে বাক্সমুন নামের একটি জার্মান জাহাজ।

এই পাঁচজন হলেন ডেক ক্যাডেট মোখলেছুর রহমান, চতুর্থ ইঞ্জিনিয়ার আবদুল হাকিম, মোহাম্মদ রুবেল, মোহাম্মদ ওসমান ও সাইফুল ইসলাম। বাক্সমুনে করেই তারা রবিবার বাংলাদেশে পৌঁছান।

উদ্ধার অভিযানের দ্বিতীয় দিন শুক্রবার হোপের দ্বিতীয় কর্মকর্তা মোবারক হোসাইন, ডেক ক্যাডেট ফাইজুর, ইঞ্জিন ক্যাডেট মুশফিকুর রহমানকেও জীবিত উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়।

আর জাহাজের প্রধান কর্মকর্তা মাহবুব মোর্শেদ ও প্রধান প্রিকৌশলী কাজী সাইফুদ্দিনের মরদেহ পাওয়া যায় আন্দামান সাগরে।

ফুকেট নিউজের খবরে বলা হয়, কাত হয়ে থাকা এমভি হোপকে একটি টাগবোটের সাহায্যে কাছাকাছি একটি বন্দরে নিয়ে যাওয়া হবে মেরামতের জন্য। তবে এ জন্য যথেষ্ট সময় লাগবে।

থাই নৌবাহিনী এ কাজে সহযোগিতা দিচ্ছে বলেও স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ