মঙ্গলবার, মে ২১, ২০২৪
প্রচ্ছদইন্টারভিউচট্টগ্রামে যাত্রা শুরু করেছে ডেমু ট্রেন

চট্টগ্রামে যাত্রা শুরু করেছে ডেমু ট্রেন

শনিবার দুপুরে চট্টগ্রামে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করেছে ডিজেল ইলেক্ট্রিক মাল্টিপল ইউনিট(ডেমু) ট্রেন। রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুল হক এ ডেমু ট্রেন চলাচল উদ্বোধন করেন। চট্টগ্রাম-লাকসাম এবং চট্টগ্রাম-ফৌজদারহাট রুটে এ ট্রেন চলাচল করে।

প্রতিদিন demu-train-openingচট্টগ্রাম-ফৌজদারহাট রুটে এ ট্রেন দু’বার চলাচল করবে। প্রথম ট্রেন চট্টগ্রাম স্টেশন থেকে সকাল ৮টা ১০মিনিটে এবং দ্বিতীয় ট্রেন বিকেল ৪টা ৩০ মিনিটে ছাড়বে। এ রুটে ন্যূনতম ভাড়া রাখা হয়েছে ১৫ টাকা।  অন্যদিকে চট্টগ্রাম-লাকসাম রুটে প্রতিদিন একবার করে যাওয়া-আসা করবে। চট্টগ্রাম স্টেশন থেকে ছাড়বে বিকেল ৫টা ৩০মিনিটে এবং লাকসাম থেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশে ছাড়বে ভোর ৫টা ৫০মিনিটে। এ রুটে ভাড়া ধার্য করা হয়েছে ৫৫টাকা। চীন থেকে আমদানি করা এসব ট্রেন বিদেশে ডেমু হিসেবে পরিচিত হলেও বাংলাদেশে সার্কুলার ও কমিউটার ট্রেন হিসেবে চলাচল করবে।

এদিকে ডেমু ট্রেনের আনুষ্ঠানিক যাত্রা উপলক্ষে শনিবার সকালে চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন চত্বরে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুল হক। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী আফছারুল আমিন, বন ও পরিবেশ মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী, এবিএম আবুল কাশেম মাস্টার এমপি, ভারপ্রাপ্ত রেল সচিব আবুল কালাম আজাদ, রেলওয়ের মহাপরিচালক আবু তাহের ও রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক তাফাজ্জল হোসেন।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন হাসিনা মান্নান এমপি, চেমন আরা তৈয়ব এমপি ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য আমিনুল ইসলাম আমিন প্রমুখ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ‘একটি স্বার্থান্বেষী মহলের বাধার কারণে রেলওয়ের কাঙ্ক্ষিত অগ্রগতি হয়নি। এতে রেললাইন সম্প্রসারণের বদলে সংকুচিত হয়েছে। এ স্বার্থান্বেষী মহলের থাবা শুধু দেশেই সীমাবদ্ধ নয়, বিভিন্ন দাতাগোষ্ঠীর মধ্যেও এ থাবা প্রসারিত হয়েছে।’

তারা বলেন, ‘উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রেলের উন্নয়নের জন্য বাস্তবসম্মত বিভিন্ন  পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। প্রধানমন্ত্রী রেলপথ মন্ত্রণালয় গঠন করেছেন এবং তাঁর নির্দেশনায় রেল লেইন সম্প্রসারণের কাজ এগিয়ে চলছে।’

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুল হক বলেন, ‘ডেমু ট্রেনের আনুষ্ঠানিক যাত্রার মাধ্যমে রেলের ইতিহাসে নতুন দিগন্তের উন্মোচন হয়েছে।’ রেলের সম্পদ রক্ষায় দায়িত্ব পালনে অবহেলা করলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার ‍হুমকি দেন রেল মন্ত্রী।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমিন বলেছেন, ‘রেলে যারা নাশকতামূলক কর্মকান্ড চালাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আইন মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

বন ও পরিবেশ মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘ডেমু ট্রেন চট্টগ্রাম বিমানবন্দর পর্যন্ত সম্প্রসারিত করা হবে। ইতিমধ্যে এ প্রকল্প ‍অনুমোদন পেয়েছে। এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করার জন্য কয়েক’শ কোটি টাকার প্রয়োজন। তাই ভবিষ্যতে সুযোগ দিলে এ রেললাইন সম্প্রসারিত করা হবে।’

বন ও পরিবেশ মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘চট্টগ্রাম থেকে ঘুমধুম পর্যন্ত রেললাইন সম্প্রাসরণে প্রাথমিক কাজ শুরু হয়েছে। রেললাইন করার জন্য জমি অধিগ্রহণের কাজ চলছে। তহবিল পাওয়া সাপেক্ষে এ প্রকল্পের কাজ শুরু হবে।’

আরও পড়ুন

সর্বশেষ