রবিবার, মে ১৯, ২০২৪
প্রচ্ছদদেশজুড়েধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে শাহবাগে মানববন্ধন

ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে শাহবাগে মানববন্ধন

oooনারী ধর্ষণ ও নির্যাতনের প্রতিবাদে মানবন্ধন এবং সমাবেশ করেছে নারী নির্যাতন বিরোধী আন্দোলন নামে একটি সংগঠন। শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর শাহবাগের জাতীয় জাদুঘরের সামনে অনুষ্ঠিত এ মানবন্ধনে প্রায় শতাধিক লোক অংশ নেয়।

এ সময় তারা ‘ধর্ষণ মামলায় জামিন নিষিদ্ধ চাই’, ‘ডোন্ট টীচ মি হোয়াট টু ওয়্যার, টীচ দেম নট টু রেপ’, ‘দ্রুত বিচার আইনে ধর্ষণ মামলার রায় দিতে হবে’, ‘ধমান্তরকরণ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট নীতিমালা চাই’, ‘তথাকথিত বিচার নয়, ধর্ষকদের ফাঁসি চাই’, ‘সেভ মাই ডিগনিটি, আই এম ইওর ডটার’, ‘নারীর পোশাকের দিকে না তাকিয়ে নিজের বিবেককে জাগ্রত করুন’ প্রভৃতি দাবি সম্বলিত প্ল্যাকার্ড তুলে ধরেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, নারীরা আজ সর্বক্ষেত্রে অবহেলিত এবং শোষিত হচ্ছে। যে দেশের প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, মন্ত্রীসহ বড় বড় পদে নারীরা দায়িত্ব পালন করছেন সে দেশের নারীরা এভাবে ধর্ষিত এবং নির্যাতনের শিকার হচ্ছে তা মেনে নেওয়া যায় না। নারীদের ওপর এই শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন প্রতিহত করতে হলে তৃণমূল পর্যায় থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ পর্যায়ের নারীদের নিয়ে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

 মানববন্ধনে বক্তারা ধর্ষণ ও নারি নির্যাতন রোধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, এ দেশ যখন নারী ক্ষমতায়নের এক উজ্জ্বল মডেল হিসাবে বিশ্ব দরবারে সমাদৃত হচ্ছে ঠিক তখনই নারী নির্যাতন ও ধর্ষণ নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। জনসচেতনতা সৃষ্টি এবং কঠোর আইন প্রণয়ন ও প্রয়োগ ব্যতীত এটি রোধের অন্য কোন উপায় নেই।’

 মানবন্ধন থেকে কয়েকটি দাবি জানানো হয় যার মধ্যে রয়েছে-দ্রুত বিচার আইনের মাধ্যমে সর্বোচ্চ তিন মাসের মধ্যে ধর্ষণ মামলার রায়, ধর্ষকের সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসি নিশ্চিত করা, ধর্ষণ মামলার রায়কে রাস্ট্রপতির বিশেষ ক্ষমার বাইরে রাখা, ধর্ষিতা নয় ধর্ষকের পরিচয় প্রকাশ করা ও সামাজিকভাবে বয়কট করা, ধর্ষিতার সমস্ত দায়িত্ব রাস্ট্রের বহন করা ইত্যাদি।

 উল্লেখ্য, সম্প্রতি বগুড়ার শিবগঞ্জ, গাজীপুরের কালিয়াকৈড়, মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বেশ কয়েকটি ধর্ষণের ঘটনায় দেশের সব জনসাধারণের মধ্যে উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ