ব্রেকিং নিউজ

কিছু মানুষ নানা অজুহাতে পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি করছে : প্রধানমন্ত্রী

কিছু মানুষ নানা অজুহাতে পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি করছে, বিশ্ব পরিস্থিতিতে পণ্যের মূল্য এমনভাবে বৃদ্ধির পাওয়ার কথা নয় বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পণ্যের মূল্য বৃদ্ধির অজুহাতে বিরোধী পক্ষ আন্দোলন করলে তাদের কাউকে গ্রেপ্তার না করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী। রোববার (১৪ আগস্ট) সকালে গণভবনে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকদের সাথে বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন। দলের সব শেষ সাংগঠনিক কার্যক্রমের মূল্যায়ন এবং শোকের মাসের পরে কর্মসূচী নির্ধারণ করতে সাংগঠনিক সম্পাদকদের সাথে গণভবনে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার বৈঠক বসে।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, অপজিশনসহ নানা জনে নানা কথা বলবে, এর সুযোগ নেওয়ারও চেষ্টা করবে। কিন্তু তারা যদি এসব বেশি করতে যায় তাহলে এর প্রভাবেই তো মানুষের কষ্ট আরও বাড়বে। এটাও তাদের বোঝা উচিত। তবে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার সামর্থ্য সরকারের রয়েছে।

তিনি বলেন, তারা আন্দোলন (বিএনপি) করে কতটুকু সফল হবে জানি না। কিন্তু তারা যেভাবে করতে চাচ্ছে, তাতে দেশের জন্য আরও ক্ষতি হবে। কিন্তু সেটা আমরা সামাল দিতে পারবো, সেই বিশ্বাস আমার আছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের বিরোধী দল একটা সুযোগ পাচ্ছে, তারা আন্দোলন করবে, করুক। আমি আজকেও নির্দেশ দিয়েছি— খবরদার যারা আন্দোলন করছে, তাদের কাউকে যেন গ্রেফতার করা না হয় বা ডিস্টার্ব করা না হয়। তারা প্রধানমন্ত্রীর অফিসও ঘেরাও দেবে, আমি বলেছি, হ্যাঁ, আসতে দেব। কেননা আমরা যে আন্তরিকতার সঙ্গে চেষ্টা করছি দেশের কাজ করতে, দেশের মানুষ তো সেটা জানে। মানুষের কষ্ট যে হচ্ছে, সেটা তাঁর সরকার উপলদ্ধি করতে পারছে বলেই প্রতিনিয়ত সেই কষ্ট লাঘবের প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম কমার সঙ্গে সঙ্গে এর দাম সমন্বয় করা হবে। একই সঙ্গে দেশের কয়লা-ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোর উৎপাদন শুরু হলে বিদ্যুতের এই সমস্যা অনেকটাই দূর হয়ে যাবে বলেও প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, আর যখনই বিশ্ববাজারে তেলের দাম কমবে, আমরা সাথে সাথেই অ্যাডজাস্ট করবো, সেটাও আমার নির্দেশ রয়ে গেছে।

সমসাময়িক সংকট কাটাতে বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে বিদ্যুৎ ব্যবহারে মিতব্যয়ী হবার পাশাপাশি উৎপাদন কমিয়ে আনায় তাঁর সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, হয়তো আর কিছুদিন আমাদের কষ্ট করতে হবে। আমাদের কয়লা-ভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর উৎপাদন শুরু হলে বিদ্যুতের এই সমস্যা অনেকটাই দূর হয়ে যাবে। উৎপাদন বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনা যেতে না যেতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধকে কেন্দ্র করে

বৈঠকের আগে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষে ভালো থাকলেই একটি পক্ষ চক্রান্ত শুরু করে। সেই চক্রান্ত এখনও চলছে। ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে শুধু বাংলাদেশ নয়, সারাবিশ্বে মধ্য ও নিম্নবিত্ত মানুষই সমস্যায় আছে বলেও জানান শেখ হাসিনা। বাজারে জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি পেলে বিরোধীপক্ষ সুযোগ নেবে, এমনটাই স্বাভাবিক বলেও উল্লেখ করেন তিনি। জানিয়েছেন, বিশ্ব বাজারে তেলের দাম কমলে তা দ্রুত সমন্বয় করার সিদ্ধান্তও সরকারের আছে।

About bdsomoy