ব্রেকিং নিউজ

ফোবানার একাংশের সম্মেলনে তুমুল সংঘর্ষ

ওয়াশিংটন ডিসি সংলগ্ন ভার্জির্নিয়া স্টেটের আলিংটনের হিলটন ক্রিস্টাল সিটির মিলনায়তনে ফোবানার একাংশের সম্মেলনে তুমুল সংঘর্ষ হয়েছে। হোস্ট কমিটির আহবায়ক শরাফত হোসেন বাবু কর্তৃক ফোবানার নির্বাহী সেক্রেটারি কাজী আজমকে চড়-ধাপ্পরের পর উভয় পক্ষের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়। আগে থেকেই হোস্ট কমিটির এই কর্মকর্তার আচরণ নিয়ে স্টিয়ারিং কমিটির মধ্যে বিরোধ চলছিল। তারই পরিণতি ঘটে মারপিটের মধ্য দিয়ে। ৪ সেপ্টেম্বর শনিবার সন্ধ্যায় অর্থাৎ তিনদিনের সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন সম্মেলনের মূল মিলনায়তনের পাশেই অবস্থিত ক্যাফেটরিয়ায় মারপিটের সময় সেখানে থাকা নারী ও শিশুরা ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েন। ষাটোর্ধ্ব প্রবাসী নেতাদের মধ্যে মারপিটের ভিডিও ফুটেজ চারদিকে ছড়িয়ে পড়ার পর ছিঃ ছিঃ রব উঠেছে সর্বত্র।

‘উত্তর আমেরিকার প্রবাসীদের মহামিলনমেলা’ হিসেবে এক সময়ে পরিচিতি পাওয়া ফোবানার বিভক্তি এবং এমন মারপিটে অতিষ্ঠ, বিতশ্রদ্ধ এবং ক্ষুব্ধ সুধিজনেরা ইতিমধ্যেই এই সম্মেলনে যোগদান থেকে বিরত রয়েছেন। এই সম্মেলনে উপস্থিত হওয়া প্রবাসীদের প্রায় সকলেই এসেছিলেন নাচ দেখতে আর গান শুনতে। তারা হতাশ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন বলে সম্মেলনে অংশগ্রহণরত প্রবাসীরা এ সংবাদদাতাকে জানিয়েছেন। উল্লেখ্য, ফোবানার মূল অংশ করোনার কারণে সম্মেলনের তারিখ পিছিয়ে নভেম্বরের শেস সপ্তাহে নিয়েছে। ফলে ক্ষুদ্রতম অংশটির এই আয়োজনটিও প্রশ্নবিদ্ধ হলো।

ফোবানার এই অংশের স্টিয়ারিং কমিটির একজন নেতা নাম গোপন রাখার শর্তে বলেন, বিদ্যমান রীতির পরিপন্থিভাবে প্রাইম টাইমে মূলমঞ্চে আলোচনার সুযোগ দেয়া হয় ভিন্ন একটি সংগঠনকে। সেখানে উপস্থিত থাকা সত্বেও স্টিয়ারিং কমিটির চেয়ারম্যান, নির্বাহী সেক্রেটারিসহ অপর কর্মকর্তাগণকে মঞ্চে ডাকা দূরের কথা ন্যূনতম সম্মানও প্রদর্শন করা হয়নি। প্রোগ্রামেও হ-য-ব-র-ল পরিস্থিতি চলছিল। সম্মেলনের হোস্ট কমিটির কনভেনর ও বিএনপি নেতা শরাফত হোসেন বাবুর কাছে এনিয়ে আপত্তি করায় তোপের মুখে পড়েন নির্বাহী সেক্রেটারি ও বিএনপি নেতা কাজী আজম। স্টিয়ারিং কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেন খানসহ কয়েকজনের সামনেই শরাফত হোসেন বাবু কষে ধাপ্পড় দেন কাজী আজমের গালে। কাজী আজম চেষ্টা করেছিলেন পাল্টা থাপ্পড়ের। কিন্তু বাবু সরে পড়ায় গালে লাগেনি। ঘটনার আকস্মিকতায় হতভম্ব হলেও বাবু ও আজমকে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করেন সকলে। কিন্তু তারপরও ধাক্কা-ধাক্কি আর মারপিটের ঘটনা থামেনি। এক পর্যায়ে স্টিয়ারিং কমিটির নেতা আলী ইমাম, মাকসুদ চৌধুরী, ফিরোজ আহমেদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। রক্তপাত ছাড়াই মোটামুটি পরিস্থিতি শান্ত হয় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।

এরপর আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হলেও সাধারণ প্রবাসীরা নিরাপত্তাহীনতার কারণে বাসায় ফিরে গেছেন এবং পরিস্থিতি উত্তপ্ত ছিল গভীর রাত অবধি। সম্মেলনের আয়োজক সংগঠন ছিল ‘স্বাদেশ’ নামক সামাজিক সংগঠন। ওয়াশিংটন মেট্র এলাকার অন্য কোন সংগঠনের পরিবেশনা এতে দেখা যায়নি। সম্মেলনে বাংলাদেশের জনপ্রিয় ও প্রবীণ অভিনেতা আহমদ শরীফ, চিত্র নায়ক হেলাল খান, জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী বেবী নাজনীন, রিজিয়া পারভিন, কনক চাঁপা, তপন চৌধুরী, শুভ্র দেব, তাহসান, এবং মরমী শিল্পী আব্দুল আলীমের কন্যা সঙ্গীত শিল্পী জোহরা আলীমসহ দেশ ও প্রবাসের জনপ্রিয় শিল্পী রানো নেওয়াজ, চন্দন চৌধুরী, আফজাল হোসেন প্রমুখ অংশ নেন বলে জানা গেছে।

প্রসঙ্গত: উল্লেখ্য যে, দক্ষিণ এশিয়ান শ্রমিক-কর্মচারিদের মোর্চা হিসেবে পরিচিত ‘আসাল’র প্রতিষ্ঠাতা ও ন্যাশনাল প্রেসিডেন্ট মাফ মিসবাহ-সহ বেশ কজন ছিলেন এই ফোবানায়। সেই সুবাদে ইউএস সিনেটের লিডার সিনেটর চাক শ্যুমার আসালকে প্রদত্ত একটি শুভেচ্ছা বার্তার ভিডিও এই সম্মেলনে প্রদর্শন করা হয়। আসালের আমন্ত্রণে সম্মেলনে এসেছিলেন জর্জিয়া স্টেটের সিনেটর শেখ রহমান এবং নিউইয়র্ক সিটির কাউন্সিলওম্যান প্রার্থী ফারহানা হানিফও। এই অংশের ফোবানার সাবেক কর্মকর্তাগণের মধ্যে ছিলেন গিয়াস আহমেদ, কাজী নয়ন, মোহাম্মদ শাহনেওয়াজ, জসীম ভুইয়া, মিল্টন ভ’ইয়া, আসেফ বারি টুটুল প্রমুখ।

সম্মেলনের শেষদিন রোববার স্টিয়ারিং কমিটির সভায় আলী ইমামকে চেয়ারম্যান এবং শাহনেওয়াজকে নির্বাহী সেক্রেটারি করে নতুন কমিটি গঠন এবং সামনের বছরের লেবার ডে উইকেন্ডে এই অংশের সম্মেলন কানাডার মন্ট্রিয়লে করার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়েছে বলে জানান ‘আরাফাত রহমান কোকো স্মৃতি পরিষদ’র চেয়ারম্যান শাহাদৎ হোসেন রাজু।

About bdsomoy