ব্রেকিং নিউজ

দেশের অপ্রতুল ভূমি সম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিতে প্রকল্প অনুমোদন

কৃষি জমি সুরক্ষা ও সর্বোপরি দেশের সামগ্রিক খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে প্রায় ৩৩৮ কোটি টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে ২০২০ হতে ২০২৪ মেয়াদে ‘মৌজা ও প্লটভিত্তিক জাতীয় ডিজিটাল ভূমি জোনিং প্রকল্প’ আজ শেরেবাংলা নগরের এনইসি ভবনে অনুষ্ঠিত জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির সভায় অনুমোদিত হয়। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে একনেক চেয়ারপার্সন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী, এমপি ও ভূমি সচিব মোঃ মাক্‌ছুদুর রহমান পাটওয়ারী শেরেবাংলা নগরে অবস্থিত এনইসি ভবন থেকে সভায় অংশগ্রহণ করেন।

এই প্রকল্পের মাধ্যমে ভূমির গুণাগুণ অনুযায়ী ভূমিকে প্লটওয়ারী কৃষি, আবাসন, বাণিজ্যিক, পর্যটন ও শিল্প উন্নয়ন ইত্যাদি ক্যাটাগরিতে বিভক্ত করে মৌজা ও প্লটভিত্তিক ডিজিটাল ভূমি জোনিং ম্যাপ ও ভূমি ব্যবহার পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হবে। মাঠ পর্যায়ে সুষ্ঠু ভূমি ব্যবস্থাপনার নিমিত্ত সারাদেশে মৌজা ও প্লটভিত্তিক ডাটা বেইজ প্রণয়নও করা হবে একই সাথে। প্রকল্পটি সরাসরি ভূমি মন্ত্রণালয় বাস্তবায়ন করবে। এজন্য ভূমি জোনিং বিষয়ক কার্যক্রম সচল রাখার জন্য ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীনে একটি পৃথক ইউনিট গঠন করা হবে। প্রকল্পটির মাধ্যমে প্লট নাম্বার এবং প্লটভিত্তিক বিস্তারিত তথ্যাদি ভূমি জোনিং মানচিত্রে সন্নিবেশিত করা হবে যেন জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের ভূমি প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগণ এই তথ্য ব্যবহার করে অপ্রতুল ভূমি সম্পদের যথাযথ ব্যবহার করে দেশের ভূমি সম্পদ সংরক্ষণে যথাযথ ভূমিকা রাখতে পারেন।

উল্লেখ্য, দেশে কৃষি জমির পরিমাণ মোট জমির ৮৪ শতাংশ। তবে জনসংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে নতুন আবাসন, রাস্তাঘাট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণের জন্য কৃষি জমি ব্যবহারের ফলে কৃষি জমির পরিমাণ প্রতিনিয়ত হ্রাস পাচ্ছে। কৃষি জমি সুরক্ষা ও সর্বোপরি দেশের সামগ্রিক খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে ভূমির যথাযথ ব্যবহার অপরিহার্য। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে দেশের কৃষি জমি সুরক্ষায় একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক অর্জিত হবে। দেশের অপ্রতুল ভূমি সম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করাই প্রকল্পটির মূল লক্ষ্য।

About bdsomoy