ব্রেকিং নিউজ

নির্ধারিত সময় পেরিয়ে গেলেও লাইসেন্স নবায়ন করতে পারেনি দুই তৃতীয়াংশ বেসরকারি হাসপাতাল

নির্ধারিত সময়ের ২০ দিন পেরিয়ে গেলেও লাইসেন্স নবায়ন করতে পারেনি দুই তৃতীয়াংশ বেসরকারি হাসপাতাল। অল্পসময়ে একাধিক শর্তপূরণ, অনলাইনে ফরম পূরণে জটিলতা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে তীব্র জনবল সঙ্কটে বিপাকে পড়তে হচ্ছে বলে দাবি করে বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সমিতির। লাইসেন্স ফি কমানো, বছর বছর নবায়নের নিয়ম পরিবর্তনসহ প্রক্রিয়া সহজ করার আহ্বান মালিকদের। লাইসেন্স নবায়নের জন্য গত শনিবার পর্যন্ত অনলাইনে আবেদনপত্র জমা পড়েছে ১৬ হাজারের বেশী। ইতোমধ্যেই লাইসেন্স পেয়েছে ৬ হাজার ৩৯৫টি বেসরকারি হাসপাতাল। আর যাচাইবাছাই শেষ হয়ে লাইসেন্স প্রাপ্তির অপেক্ষায় রয়েছে আরো ২ হাজার।

লাইসেন্স ফি, পরিবেশ ছাড়পত্র, মাদকের ছাড়পত্র, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা চুক্তিপত্রসহ নানা শর্ত একমাসের বেঁধে দেয়া সময়ে পূরণ করতে ব্যর্থ হয়েছে অনেকেই। ছোট ও মাঝারি হাসপাতালগুলো লাইসেন্স পেতে হিমশিম খাচ্ছে। তবে বড় হাসপাতালগুলো সহজেই যাবতীয় শর্ত পূরণ করে নবায়ন সম্পন্ন করেছে। ধানমন্ডি ইবনে সিনা হাসপাতালের ডিজিএম মো. আশরাফুল ইসলাম বলেন, ‘নতুন পদ্ধতিটা সহজ। নির্দিষ্ট একটা ফরমেট আছে সেটা পূরণ করে অনলাইনে জমা দিচ্ছি। সরাসরি গিয়ে ধন্না দিতে হয় না। এদিকে একাধিক শর্ত কমিয়ে প্রক্রিয়া আরো সহজ করবার আহ্বান জানিয়েছে বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক মালিক সমিতি। বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক মালিক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মো. মনিরুজ্জামান ভুঁইয়া বলেন, ‘যারা ছোট খাটো ক্লিনিক ডায়াগনস্টিক সেন্টার চালায় তাদের পক্ষে নবায়নের ৫০ হাজার টাকা দেওয়া সম্ভব নয়। সর্বাত্মক সহযোগিতার পরও লাইসেন্স নবায়নের ক্ষেত্রে যারা গড়িমসি করবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের হুঁশিয়ারী দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল পরিচালক ডা. ফরিউদ্দিন মিয়া। লাইসেন্স নবায়নের ক্ষেত্রে পরিবেশের ছাড়পত্র একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ। অথচ দেশের প্রায় ১৭ হাজার হাসপাতালের সর্বোচ্চ ২০০টির রয়েছে ইটিপি প্ল্যান্ট। এক্ষেত্রে ইটিপি প্ল্যান্টের জন্য আবেদনকারীদেরও এবার দেয়া হচ্ছে লাইসেন্স নবায়নের সুযোগ।

About bdsomoy