ব্রেকিং নিউজ

জাপানে একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলার শহিদদের স্মরণ

২০০৪ সালের একুশে আগস্ট ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভায় নারকীয় গ্রেনেড হামলায় শাহাদাৎ বরণকারী সকল শহিদ ও সেই বিভীষিকাময় স্মৃতি নিয়ে আজো যারা বেঁচে আছে তাঁদের সকলকে বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করেছে বাংলাদেশ দূতাবাস, টোকিও, জাপান।  ২১ আগস্ট ২০২০ বিকালে দূতাবাসের বঙ্গবন্ধু মিলনায়তনে সাবেক রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমানের সহধর্মিণী ও মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী বেগম আইভি রহমানসহ নিহত ২৪ জন শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন ও  বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয় এছাড়া সেদিনের বীভৎস রাজনৈতিক হত্যাযজ্ঞে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে যাওয়া কিন্তু আহত প্রায় পাঁচ শতাধিক নেতাকর্মীর সুস্থতা ও আরোগ্য লাভের জন্যও দোয়া করা হয়। এছাড়া অনুষ্ঠানে দিবসটি উপলক্ষে মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণী পাঠ করেন দূতাবাসের মিনিস্টার এবং দূতালয় প্রধান ড. জিয়াউল আবেদীন এবং কমার্শিয়াল কাউন্সেলর ড. আরিফুল হক

 পরে এক আলোচনায় চার্জ দ্যা অ্যাফায়ারস ড. শাহিদা আকতার বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তাঁর পরিবারকে হত্যা করে, এরই ধারাবাহিকতায় একই বছর ৩রা  নভেম্বর জেলখানায় অন্তরিন থাকা অবস্থায় জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করেও ক্ষান্ত হয়নি। তিনি আরো বলেন, বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সেদিন ছিলেন বিরোধী দলীয় নেতা যার অবস্থান সবসময় সন্ত্রাস, জঙ্গি কার্যক্রম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে এবং বাংলার গরিবদুঃখী, মেহনতি মানুষের পক্ষে। গণতন্ত্রের মানসকন্যা শেখ হাসিনাকে নিশ্চিহ্ন করার ঘৃণ্য প্রয়াস নিয়ে এবং স্বৈরশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য নিয়ে সেদিন ঘাতক চক্র এই নির্মম ও নির্লজ্জ হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিলো। দেশ ও গণতন্ত্র বিরোধী সকল ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সকলকে সজাগ, সচেতন ও সোচ্চার থাকার আহ্বান জানান চার্জ দ্যা অ্যাফায়ারস ড. শাহিদা আকতার।অনুষ্ঠানে দূতাবাসের কর্মকর্তা – কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন।       

About bdsomoy