ব্রেকিং নিউজ

ক্ষমতাসীন দলের সমর্থিত কর্মকর্তাদের সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে : মির্জা ফখরুল

ক্ষমতাসীন দলের সমর্থিত কর্মকর্তাদের সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ১৪ জানুয়ারি দুপুরে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে গুম-খুন ও নির্যাতনের শিকার পরিবারের সন্তানদের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ অভিযোগ করেন। মির্জা ফখরুল বলেন, সিটি করপোরেশন নির্বাচনে যাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে তাদের ব্যাকগ্রাউন্ড কিন্তু আমরা জানি। কে গাড়ির অনুমোদন নেওয়ার জন্য ফাইল বদল নিয়ে মন্ত্রীর কাছে গেছেন, কারা নিজের স্কুল পারমিশন নেওয়ার জন্য সরকারি জমি নিয়েছেন- এসব খবর আমাদের কাছে আছে।

দেখা যাচ্ছে, এসব মানুষগুলোকে যাদের কোনো মোরালিটি নেই, তাদের নির্বাচনে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তাদের দিয়েই আবার নতুন যে যন্ত্র তৈরি করেছে ইভিএম মেশিন, যে মেশিন পৃথিবীর সব দেশে রিজেক্টেটেড হয়ে যাচ্ছে। এটাকে ম্যানুপুলেটেড করা যায়।

তিনি বলেন, সোমবার চট্টগ্রামে উপ-নির্বাচন হয়েছে। সেখানে ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে যেতে দেয়নি। বোমা মেরে লাঠিসোটা দিয়ে ভোটারদের তাড়িয়ে দিয়েছে। তারপরও জিজ্ঞাস করেন বলবে যে, আপনারা পারেননি। পারবো কোত্থেকে? যারা ভোটার তারা তো মারামারি করে না। তারা তাদের অধিকারটা প্রয়োগ করতে যায়, সেটা প্রয়োগ করতে দেওয়া হয় না। নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, হতাশ হবেন না, ছেড়ে দেবেন না। যত কষ্ট আসুক, যত যন্ত্রণা আসুক, যত অত্যাচার লাঞ্ছনা আসুক এদেশের মানুষ বারবার উঠে দাঁড়িয়েছে, তরুণরা উঠে দাঁড়িয়েছে, দাঁড়াবে, দাঁড়াচ্ছে। সব জায়গায় প্রতিরোধ হচ্ছে, প্রতিরোধ হবে।

বর্তমানের সরকারের নিপীড়ন-নির্যাতনে চিত্র তুলে ধরে মির্জা ফখরুল বলেন, ২০১০ সাল থেকে আমরা এই আক্রমণের স্বীকার হচ্ছি। আওয়ামী লীগ যারা স্বাধীনতা যুদ্ধের আগে সংগ্রাম করেছিল, গণতান্ত্রিক লড়াই করেছিল তারাই স্বাধীনতা যুদ্ধের পরে দানবে পরিণত হয়েছে। বিএনপি মহাসচিব বলেন, সরকারে যারা আছেন এরা জোর করে ক্ষমতা দখল করে আছেন। তারা বক্তৃতা যখন করেন মনে হয় যেন কিছুই হয়নি দেশে, চমৎকার পরিবেশ আছে, দেশের মানুষ খুব ভালো আছে। প্রতিদিন পত্রিকায় দেখবেন একটা হত্যার মহোৎসব চলছে। আজ একটি মারাত্মক খবর দেখলাম। মহাসড়কে মানুষের শরীরের অংশ ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে।

‘তিন/চার বছরের শিশুকে পর্যন্ত হত্যা করা হচ্ছে। এই যে হত্যা, শ্লীলতাহানি, ধর্ষণ যেন একটা সাধারণ ব্যাপার হয়ে গেছে। মানুষ এখন আর কথা বলে না, কথা বলার সুযোগ নেই। এটাই চেয়েছিল ওরা (সরকার)। ভয়ভীতি ছড়িয়ে দিয়ে পুরো ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করা, সেটাই করেছে তারা।’

সংগঠনটির সভাপতি আবদুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য এনামুল হক চৌধুরী, সাবেক ছাত্রনেতা নাজিম উদ্দিন আলম, কামরুজ্জামান রতন, হাবিব উন নবী খান সোহেল, শফিউল বারী বাবু, মামুন হাসান, ছাত্রদলের ফজলুর রহমান খোকন, হেল্প সেলের নাসির উদ্দিন শাওন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

About bdsomoy