ব্রেকিং নিউজ

গবাদি পশু খামারিদের জন্য দেশের প্রথম প্রাণিসম্পদ বীমা চালু করেছে ব্র্যাক ব্যাংক ও গ্রীন ডেল্টা

দেশে প্রথমবারের মতো, ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড এবং গ্রিন ডেল্টা ইনস্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড যৌথভাবে নিয়ে এলো গবাদি পশু খামারিদের জন্য প্রাণিসম্পদ বীমা কাভারেজ সুবিধা।BRAC Bank-Green Delta

দুর্ঘটনায়, রোগে বা প্রসবকালে গবাদি পশুর মৃত্যু অথবা যেকোনো রকম আংশিক অক্ষমতার কারণগত ক্ষতির ঝুঁকি কমানোর মাধ্যমে এই অনন্য স্কিমটি গবাদি পশু খামারিদের জন্য খুবই সহায়ক হবে।

গ্রাহকদের জন্য অভিনব আর সময়োপযোগী প্রোডাক্ট চালু করার প্রতিশ্রুতির অংশ হিসেবে কোম্পানি দু’টি এই নতুন সুবিধাটি চালু করলো। এর জন্য এনএফসি-সম্বলিত কলার ট্যাগ দিয়ে পশুর শনাক্তকরণ ও নজরদারিরও একটি বিশেষ আধুনিক পদ্ধতির সূচনা করেছে গ্রীন ডেল্টা, যার ফলে বীমার দাবি মেটানোর প্রক্রিয়াটিও সহজ আর সুবিধাজনক হবে।

২৮ আগস্ট ২০১৯ ঢাকার প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মোঃ আশরাফ আলী খান খসরু, এমপি এই ‘ক্যাটল শিল্ড’ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। অনুুষ্ঠানে ব্র্যাক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নিবাহী কর্মকর্তা সেলিম আর. এফ. হোসেন আর গ্রীন ডেল্টা ইনস্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নিবাহী কর্মকর্তা ফারজানা চৌধুরী’র পাশাপাশি অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন চ্যানেল আই-এর পরিচালক ও হেড অব নিউজ শাইখ সিরাজ, ব্র্যাক ব্যাংকের এসএমই ব্যাংকিং এর প্রধান সৈয়দ আব্দুল মোমেন, গ্রীন ডেল্টা’র অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও কোম্পানি সেক্রেটারি সৈয়দ মইনুদ্দিন আহমেদ।

এ উপলক্ষে সেলিম আর. এফ. হোসেন বলেন, “শুরু থেকেই দরিদ্র জনগোষ্ঠীর অর্থনীতিতে অন্তর্ভুক্তি আর সমৃদ্ধির লক্ষ্যে ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ে অর্থায়নের সবসময় অগ্রাধিকার দিয়ে আসছে ব্র্যাক ব্যাংক। প্রযুক্তির সাহায্যে চালুকৃত এই নতুন অভিনব সুবিধাটি বিশেষত ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক গবাদি পশু খামারিদের জন্য অন্তর্ভুক্তিমূলক ব্যাংকিংয়ে আমাদের দায়বদ্ধতারই আরও একটি প্রমাণ।”

তিনি আরও বলেন, “এই বীমা কাভারেজ গবাদি পশুপালন খাতটিকে আরও সমৃদ্ধির সুযোগ এনে দিবে, কেননা এর ফলে আরও উদ্যোক্তারা বাণিজ্যিকভাবে বড় পরিসরে গবাদি পশুপালনে উৎসাহী হবে। বিশেষত দেশের গ্রামা লের খামারিদের স্বার্থের সুরক্ষা নিশ্চিত করে এটি দারিদ্র্য বিমোচন ও কর্মসংস্থানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।”

অনুষ্ঠানে ফারজানা চৌধুরী বলেন, “গবাদি পশু খামারিদের জন্য দেশের সর্বপ্রথম বীমা কাভারেজ চালু করতে পেরে গ্রীন ডেল্টা ইনস্যুরেন্স অত্যন্ত আনন্দিত। আমার বিশ^াস, আরও অনেক খামারিকে এই ব্যবসায় আসতে উদ্বুদ্ধ করে এটি গ্রামীণ অর্থনীতিতে নতুন প্রাণ স ার করবে। আমরা খামারিদের সুবিধার্থে একটি সহজ, সরল ও দ্রুত দাবী পরিশোধ প্রক্রিয়াও নিয়ে এসেছি। দেশের বীমা খাতের অন্যতম অগ্রদূত হিসেবে ব্যবসা-বাণিজ্যে প্রয়োজন অনুযায়ী নতুন নতুন বীমা প্রকল্প চালুর ধারাবাহিকতা আমরা আগামীতেও অব্যাহত রাখবো।”

এই উদ্যোগটিতে বিএফপি-বি (বিজনেস ফাইন্যান্স ফর দ্য পুওর ইন বাংলাদেশ) চ্যালেঞ্জ ফান্ডের সহযোগিতায় পরিচালিত হচ্ছে, যা লন্ডনের নাথান অ্যাসোসিয়েটস-এর ব্যবস্থাপনায় ডিএফআইডি’র একটি প্রকল্প।

ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড সম্পর্কে:

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএমই) খাতের অর্থায়নে অগ্রাধিকার দেয়ার ভিশন নিয়ে ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড ২০০১ সালে যাত্রা শুরু করে, যা এখন পর্যন্ত দেশের অন্যতম দ্রুত প্রবৃদ্ধি অজনকারী একটি ব্যাংক। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে ‘ইজঅঈইঅঘক’ প্রতীকে ব্যাংকটির শেয়ার লেনদেন হয়। ১৮৭টি শাখা, ৪৬০টি এটিএম, ৪৫৬টি এসএমই ইউনিট অফিস এবং ৮ হাজারেরও বেশি মানুষের বিশাল কর্মীবাহিনী নিয়ে ব্র্যাক ব্যাংক কর্পোরেট ও রিটেইল সেগমেন্টেও সার্ভিস দিয়ে আসছে। গত চার বছরে ব্যাংকটি দৃঢ় ও শক্তিশালী আর্থিক পারফরম্যান্স প্রদর্শন করে এখন সকল প্রধান প্রধান মাপকাঠিতেই ব্যাংকিং ইন্ডাস্ট্রির শীর্ষে অবস্থান করছে। এগার লাখেরও বেশি গ্রাহক নিয়ে ব্র্যাক ব্যাংক বিগত ১৮ বছরেই দেশের সবচেয়ে বৃহৎ জামানতবিহীণ এসএমই অর্থায়নকারী ব্যাংক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। দেশের ব্যাংকিং খাতে সুশাসন, স্বচ্ছতা ও নিয়মানুবর্তিতায় অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে ব্র্যাক ব্যাংক।

গ্রীন ডেল্টা ইনস্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড সম্পর্কে:

গ্রীন ডেল্টা ইনস্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড বাংলাদেশের নন-লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানিগুলোর মধ্যে বৃহত্তম ও শীর্ষস্থানীয়। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে ‘এজঊঊঘউঊখঞ’ প্রতীকে কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়। ১৯৮৬ সালে যাত্রার শুরু থেকেই গ্রীন ডেল্টা ইনস্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড সেবার মান, অভিনব স্কিমের প্রোডাক্ট এবং আইনী কাঠামো পুনর্নির্মাণের দিক দিয়ে দেশের ইনস্যুরেন্স ইন্ডাস্ট্রিতে পরিবর্তনের ধারার নেতৃত্ব দিয়ে চলেছে। গ্রীন ডেল্টা ইনস্যুরেন্স দেশের এমন প্রথম নন-লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানি, যেটি ‘সবার জন্য বীমা’ মন্ত্র নিয়ে রিটেইল ইনস্যুরেন্স বিভাগের সূচনা করে। কিছু সেবার জন্য ডিজিটাল ইনস্যুরেন্স প্রণয়নেও গ্রীন ডেল্টা ইনস্যুরেন্স দেশের মধ্যে প্রথম। সমাজের বিশেষ বিশেষ গোষ্ঠীর জন্য বিভিন্ন অভিনব প্রোডাক্ট প্রবর্তন করার পাশাপাশি, অনিশ্চিত আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে কৃষকদের ক্ষতির ঝুঁকি হ্রাসে আবহাওয়া সূচক-ভিত্তিক কৃষি বীমা শুরুতেও গ্রীন ডেল্টা ইনস্যুরেন্স-ই অগ্রদূতের ভূমিকা রেখেছে। তিন দশকেরও বেশি সময়ের গৌরবময় পথ পেরিয়ে গ্রীন ডেল্টা ইনস্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড আজ দূরদর্শী বোর্ড-সদস্যবৃন্দ, দেশজুড়ে ৪৩টি শাখায় কর্মরত ছয় শতাধিক নিবেদিত কর্মী, সমাজের সব স্তরের অগণিত সম্মানিত গ্রাহক এবং হাজারো সম্মানিত শেয়ারহোল্ডারের এক বিশাল পরিবার। গ্রীন ডেল্টা দ্রুত দাবি নিষ্পত্তি, উন্নত সেবা এবং বৈচিত্র্যময় প্রোডাক্ট প্রবর্তনকারী বীমা প্রতিষ্ঠান হিসেবে ব্র্যান্ড ইমেজ ধরে রেখেছে। দেশের নন-লাইফ ইনস্যুরেন্স খাতে ওয়ান-স্টপ সল্যুশন প্রদানকারী বীমা কোম্পানি হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছে।

Please follow and like us:

About bdsomoy