ব্রেকিং নিউজ

সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধ্বংস করে দিয়েছে সরকার : জয়নুল আবদিন

বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক বলেছেন, খালেদা জিয়া ১৮ মাসের উপরে কারাগারে আছেন। তারেক রহমান আছেন বি‌দে‌শে। তারপ‌রেও কেন সরকারের এত ভয়? বিএনপির এই নেতা সরকারের উদ্দেশে বলেন, ‘তা‌রেক রহমান‌কে দে‌শে আসতে দেন, রাজনীতি করতে দেন। কোনো অন্যায় হলে আইন আছে। কিন্তু, তাঁকে নির্বাসিত করে তাঁর বিরুদ্ধে কথা বলবেন সেটা তো রাজনৈতিক কোনো কর্মকাণ্ড না। এটা তো প্রাচীন একটি রাজনৈতিক দলের মুখে শোভা পায় না।

বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘অপরাজেয় বাংলাদেশ আয়োজিত খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে এবং গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে আয়োজিত মানববন্ধনে জয়নুল আবদিন ফারুক এসব কথা বলেন।

বিএনপি নেতা বলেন, ‘বাংলাদেশ কোনোদিন পরাজিত হয়নি, হবেও না। বাংলার অকুতোভয় সন্তানেরা যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছেন। সেই স্বাধীনতার স্বাদ গত ৪৮ বছরে এই সরকার যে কয়দিন ক্ষমতায় ছিল, যে কয়বার বিনা ভোটে সরকার পরিচালনা করেছে বাংলাদেশের মানুষকে দিতে পারেনি। সংবিধানের প্রতি সম্মান দেখাতে পারেনি। বাংলাদেশের সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে এই সরকার সম্পূর্ণভাবে ধ্বংস করে দিয়েছে।

গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে ফারুক বলেন, ‘এই সরকার যতবারই ক্ষমতায় ছিল তত বারই জনগণের দুর্ভোগ বাড়িয়েছে, তত বারই বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম বাড়িয়েছে, তত বারই জনগণের দাবিগুলো উপেক্ষা করেছে এবং তত বারই ভোটাধিকারের ওপর লাথি মেরেছে।

বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতাদের উদ্দেশ্য করে ফারুক বলেন, ‘আমাদেরকে কর্মসূচি দেন। গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি, দেশে গুম, হত্যা, মামলা, ছোট ছোট শিশুদের ধর্ষণের প্রতিবাদ জনগণ আপনাদের কাছ থেকে চায়। সারা দেশে ধর্ষণের ঘটনায় আমি তো মনে করেছিলাম, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদত্যাগ করবেন। কিন্তু পদত্যাগ তো করলেন না। ভেবেছিলাম দোষীদের আইনের আওতায় আনবেন। কিন্তু আইনের আওতায় না এনে ক্রসফায়ার করে মেরে ফেলবেন সেটা তো বিচার হয় না। বিএনপির বহু লোককে এভাবে গুম করে, ক্রসফায়ারে হত্যা করা হয়েছে। একদিন বিচার বাংলার বুকে হবেই’, বলেন ফারুক।

সংগঠনের সহসভাপতি ভিপি ইব্রাহিমেরর সভাপতিত্বে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন সিরাজীর সঞ্চালনায় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অধ্যাপক সিরাজউদ্দিন আহমেদ, সহসাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, সহশিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক ড. ফরিদা মনি শহীদুল্লা, কৃষক দলের সদস্য লায়ন মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার, কে এম রকিবুল ইসলাম‌ রিপন ও এম জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

Please follow and like us:

About bdsomoy