ঈদযাত্রায় সড়ক ও রেলপথে চরম নৈরাজ্য চলছে: মির্জা ফখরুল

ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্র করে সড়ক ও রেলপথে চরম নৈরাজ্য চলছে’ -এমন মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, কারো কোনো জবাবদিহিতা নেই। প্রত্যেক ঈদের আগে বলা হয় দুর্ভোগ হবে না। কিন্তু ভোগান্তির শেষ নেই। ২৬ মে রাজধানীর বিজয়নগরের একটি হোটেলে লেবার পার্টির ইফতার মাহফিলে বিএনপির মহাসচিব এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, প্রত্যেক ঈদের আগে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়; এবার দুর্ভোগ হবে না। শনিবারও এজন্য নতুন একটি ট্রেন উদ্বোধন করা হয়েছে। কিন্তু দেখতে পাচ্ছি সাধারণ যাত্রীরা টিকিট কেনার আগেই অর্ধেক টিকিট বিক্রি হয়ে যাচ্ছে। চরম নৈরাজ্য চলছে, সবক্ষেত্রে লুটপাট আর নৈরাজ্য চলছে। কোনো জবাবদিহিতা নেই। কে কার কথা শুনবে?

বিএনপির মহাসচিব বলেন, গোটা জাতি অস্থিতিশীল। আওয়ামী লীগ হচ্ছেসেই দল যে দল ১৯৭৫ সালে বাকশাল প্রতিষ্ঠিত করেছিল। আজকে সেই বাকশালকে আবার প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা হচ্ছে। তারা সব সময় শুধু সংবিধানের দোহাই দেয়। কোন সংবিধান, এটা কি ’৭২ সালের সংবিধান? একদিকে গণতন্ত্রের কথা বলে অন্যদিকে গণতন্ত্রকে হত্যা করে। একদিকে সংবিধানের কথা বলে অপরদিকে তারাই ভঙ্গ করে। আজকে তেমনিভাবে সংবিধান ভঙ্গ করে খালেদা জিয়াকে আটক রাখা হয়েছে। মানুষের শেষ আশ্রয়স্থল আদালতেও মানুষ এখন আর ভরসা রাখতে পারছেনা। অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে বলতে হয় আদালতেও আজ দলীয় ক্ষমতা প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। ফখরুল বলেন, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে খালেদা মিথ্যা মামলায় কারাবরণ করছেন। আপস করেননি বলে তিনি এখনও কারাগারে।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরানের সভাপতিত্বে ইফতার মাহফিলে অন্যদের মধ্যে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নির্বাহী পরিষদসদস্য অধ্যাপক মুজিবুর রহমান, মাওলানা আব্দুল হালিম, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, হাবিবুর রহমান হাবিব, লেবার পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ফারুক রহমান, আমিনুল ইসলাম রাজু, এসএম ইউসুফ আলী, যুগ্ম-মহাসচিব নুরুল ইসলাম সিয়াম, সাংগঠনিক সম্পাদক হুমায়ুন কবির, ছাত্র মিশনের আহ্বায়ক সৈয়দ মোহাম্মদ মিলন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Please follow and like us:

About bdsomoy