মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৩, ২০২৪
প্রচ্ছদখেলার সময়আইসিসি সভায় বাংলাদেশ প্রসঙ্গ: বিশ্বকাপ নিয়ে শঙ্কা উড়িয়ে দিলেন মোস্তফা কামাল

আইসিসি সভায় বাংলাদেশ প্রসঙ্গ: বিশ্বকাপ নিয়ে শঙ্কা উড়িয়ে দিলেন মোস্তফা কামাল

স্পোর্টস ডেস্ক (বিডি সময় ২৪ ডটকম)

লর্ডসে চলমান আর্ন্তজাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) বার্ষিক সাধারণ সভা নানা কারণে বিশ্ব ক্রিকেটের জন্যই খুব গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশের কাছেও খুব গুরুত্বপূর্ণ অন্তত তিনটি কারণে-আকসু রিপোর্ট, নির্বাচন বিধি না মানায় বাংলাদেশের সদস্যপদ নিয়ে আলোচনা ও ২০১৪ বিশ্বকাপের আয়োজক স্বত্ত হারানোর সম্ভাবনা।

প্রথম ব্যাপারটি, মানে আইসিসির দুর্নীতি দমন কমিশনের (আকসু) রিপোর্ট এই লর্ডস সভায় পাওয়া যাচ্ছে কি না, সেটি এখনও নিশ্চিত নয়। তবে আইসিসির সহসভাপতি ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সাবেক সভাপতি আ হ ম মোস্তফা কামাল পরের দুটি শঙ্কা উড়িয়ে দিয়েছেন। লন্ডন থেকে বাংলাদেশী একটি টেলিভিশন চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাতকারে  তিনি পরিষ্কার বলেছেন, এরকম কিছু হওয়ার সম্ভাবনা নেই।
আইসিসির দুবাই সভার পরিষ্কার নির্দেশনা ছিল, প্রতিটি টেস্ট খেলুড়ে দেশে নির্বাচিত সভাপতিসহ পরিচ্ছন্ন ক্রিকেট বোর্ড থাকতে হবে। সে নির্দেশনা কার্যকর তো হয়ইনি; উপরন্তু নির্বাচিত কমিটির মেয়াদ শেষে কয়েক মাস ধরে বিসিবিতে ঝুলে আছে এডহক কমিটি। এর মধ্যে এই বিষয়টি যে আইসিসির নির্দেশনার বরখেলাপ, সেটা উল্লেখ করে বাংলাদেশ থেকে এক সাবেক বিসিবি পরিচালক আইসিসিকে চিঠিও দিয়েছেন। ফলে শঙ্কা একটা তৈরি হয়েছিল।
কিন্তু শঙ্কাটা পুরোপুরি উড়িয়ে দিয়েছেন আইসিসির সহষবাপতি ও ভবিষ্যত সভাপতি মোস্তফা কামাল, ‘এসব কথাই তো আমরা আমরা বলছি। আমরাই সব নেতিবাচক কথা বলছি। কিন্তু আইসিসি তো এমন কিছু বলেওনি, ভাবছেও না।’
কিন্তু এর চেয়েও একটা বড় শঙ্কায় ছিল বাংলাদেশ। আগামী বছরই বাংলাদেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ২০১৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। এই বিশ্বকাপ নিয়ে গত ক বছর ধরেই সেজে উঠতে চাচ্ছে বাংলাদেশ। এ জন্য কক্সবাজার, সিলেট ও বিকেএসপিতে চলছে নির্মান কাজ। কিন্তু সিলেট ও বিকেএসপির নির্মান কাজ একেবারেই ধীরগতিতে চলছে। বাংলাদেশ ছাড়ার একদিন আগে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন নিজে বলেছেন, এই নির্মান কাজের ধীরগতি নিয়ে, বিশেষ করে সিলেট স্টেডিয়ামের ধীরগতি নিয়ে অসন্তুষ্ট আইসিসি।
কক্সবাজারে মেয়েদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ হওয়ার কথা; সেটা তৈরি না হলে বিকেএসপিতে হবে। তাই শঙ্কা পুরুষদের অন্যতম ভেন্যু সিলেট নিয়ে। সে ক্ষেত্রে আইসিসি বিকল্প আয়োজক দেশের সন্ধান করছে বলেও বলেছিলেন পাপন। এটাও উড়িয়ে দিলেন মোস্তফা কামাল।
তিনি বিরক্তি ভরেই বলেছেন, ‘একটা ভেন্যুর জন্য আইসিসি এই শেষ সময়ে এসে বিশ্বকাপ সরিয়ে নেবে কেন? বাংলাদেশে কি ভেন্যুর অভাব নাকি? এক চট্টগ্রামেই দুটো আর্ন্তজাতিক ভেন্যু আছে। দেশে এতোগুলো টেস্ট ভেন্যু। ফলে সিলেট তৈরি হোক বা না হোক; বিশ্বকাপ সরিয়ে নেওয়ার কোনো পরিকল্পনা আইসিসির নেই। তারা বিকল্প আয়োজকও খোজ করছে না।’
বোঝা গেল, অন্তত মোস্তফা কামালের ভাষ্যমতে আইসিসি এই দুটি বিষয় নিয়ে চিন্তিত নয়। তবে তারা ম্যাচ ও স্পট ফিক্সিং নিয়ে চিন্তিত।
ম্যাচ ও স্পট ফিক্সিং নিয়ে বাংলাদেশ অধীর আগ্রহে চেয়ে আছে আকসু রিপোর্টের দিকে। বিসিবি সভাপতি বলেছিলেন, এই আইসিসি সভার মধ্যে বা পরেই আকসুর রিপোর্ট পাবেন তিনি। কিন্তু কিছু সূত্র বলছে, আরও তদন্ত বাকী থাকায় আকসুর রিপোর্ট লন্ডনে এই সময়ে না পেতে পারেন তিনি। তবে রিপোর্ট আসুক আর না আসুক দোষীদের কঠোরতম শাস্তি আইসিসি চাইবে, এটা নিশ্চিত করলেন মোস্তফা কামাল, ‘আইসিসি এসব ব্যাপারে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করে। ফলে সদস্য দেশগুলোও তাই করুক, এটাই চাইবে আইসিসি।’
আরও পড়ুন

সর্বশেষ