সোমবার, মে ২০, ২০২৪
প্রচ্ছদদেশজুড়েপিএইচপির পরিবেশবান্ধব কারখানা দেখে মুগ্ধ ব্রুনাই ও ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদূত

পিএইচপির পরিবেশবান্ধব কারখানা দেখে মুগ্ধ ব্রুনাই ও ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদূত

phpদেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় শিল্পগ্রুপ পিএইচপির স্টিল কমপ্লেক্স পরিদর্শন করেছেন ব্রুনাই দারুসসালামের হাইকমিশনার রাজাক হোসাইনী ও ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদূত ইওয়ান উইরানাতা আতমাজ্জা।

গতকাল দুপুরে এ দুই রাষ্ট্রদূত সীতাকুণ্ডের বড় কুমিরায় অবস্থিত পিএইচপির স্টিল কমপ্লেক্সে পরিবেশবান্ধব কারখানা দেখে মুগ্ধ হন। এর আগে তারা পরিদর্শনে যান পিএইচপির ফ্লোট গ্লাস ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। এ সময় অতিথিকে স্বাগত জানান পিএইচপি গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান মহসিন চৌধুরী ও পরিচালক আনোয়ারুল হক চৌধুরী।

রাষ্ট্রদূতদ্বয় দুপুর সোয়া একটা থেকে বেলা আড়াইটা পর্যন্ত পিএইচপি স্টিল কমপ্লেক্স বিভিন্ন কারখানা ঘুরে দেখেন। এ সময় পিএইচপির ভাইস চেয়ারম্যান মহসিন চৌধুরী অতিথিদের চট্টগ্রামের বিশেষায়িত শিল্পে পিএইচপির বিভিন্ন অবদানের কথা তুলে ধরেন।

এ সময় রাষ্ট্রদূতদ্বয় ভৌগোলিক অবস্থান ও অবকাঠামোগত সুবিধার কথা বিবেচনা করে চট্টগ্রাম অঞ্চলে বিশেষায়িত শিল্পাঞ্চল গড়ে তোলার সুযোগ রয়েছে বলে মন্তব্য করেন। এর আগে বেলা ১১টায় অতিথিদের নিয়ে যাওয়া হয় কমপ্লেক্সের অনতিদূরে পিএইচপি ইন্ডস্ট্রিয়াল পার্কে। সেখানে পিএইচপি’র ফ্লোট গ্লাস ইন্ডাস্ট্রিজসহ আরও কয়েকটি কারখানা পরিদর্শন করেন তারা।

রাষ্ট্রদূতদ্বয় পিএইচপির পরিবেশবান্ধব এবং অত্যাধুনিক কারখানাগুলোর উৎপাদন কার্যক্রম ও কর্মীদের একাগ্রতা দেখে মুগ্ধ হন। এ সময় তারা চট্টগ্রামে বাংলাদেশের অর্থনীতির অভূতপূর্ব উন্নতি দেখে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন।

পিএইচপি স্টিল কমপ্লেক্স পরিদর্শন শেষে বেলা আড়াইটায় রাষ্ট্রদূতদের সম্মানে এক মধ্যাহ্নভোজের আয়োজন করা হয়। এ সময় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরও দেন তারা।

ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদূত ইওয়ান উইরানাতা আতমাজ্জা সুপ্রভাতকে বাংলাদেশকে বলেন, ‘উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশ অনেক আগেই বিশ্বের বাজারে স্থান করে নিয়েছে। আসিয়ানভুক্ত দেশ হিসেবে বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।’ এ সময় তিনি পিএইপি গ্রুপ বাংলাদেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে বলে মন্তব্য করেন। রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের দ্রুত উন্নতি ও পিএইচপির সফলতাও কামনা করেন। আরেক প্রশ্নের উত্তরে রাষ্ট্রদূত ইওয়ান উইরানাতা আতমাজ্জা বলেন, ‘অল্প জায়গায় বিশাল কাজ করছে পিএইচপি স্টিল কমপ্লেক্সে। এ কারখানা সম্পূর্ণ পরিবেশবান্ধব।’

ব্রুনাই দারুসসালামের হাইকমিশনার রাজাক হোসাইনী বলেন, ‘মহসিন চৌধুরীর (পিএইচপি’র ভাইস চেয়ারম্যান) অনুরোধে এ প্রথমবার ভারী শিল্প কারাখানা পরিদর্শন করতে চট্টগ্রাম এসেছি। কারখানার পরিবেশ দেখে আমি অভিভূত, আনন্দিত।’

পিএইচপি’র স্টিল কমপ্লেক্সে নিজস্ব পাওয়ার হাউসের বিদ্যুৎ ব্যবহার করে পণ্য উৎপাদন করার বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি (রাজাক হোসাইনী) বলেন, ‘পিএইচপি একটি বড় প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে এটি বিরাট ভূমিকা রেখে চলেছে।’

এছাড়া বাংলাদেশের তেল ও গ্যাস ছাড়াও শিল্পখাতে নানা সহযোগিতা বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ উভয় দেশের রাষ্ট্রদূত। এদিকে রাষ্ট্রদূত ইওয়ান উইরানাতা আতমাজ্জা সেদেশে কর্মরত বাংলাদেশী চিকিৎসক, প্রকৌশলী, নির্মাণ শ্রমিক ও রক্ষণাবেক্ষণ কর্মীদের প্রতি ইন্দোনেশিয়া সরকারের যত্নশীল মনোভাবের কথাও উল্লেখ করেন ।

একইভাবে ব্রুনাই দারুসসালামের হাইকমিশনার রাজাক হোসাইনী ব্রুনাইয়ের আধুনিক অর্থনীতি বিনির্মাণে বাংলাদেশী পেশাজীবী ও কর্মীদের ভূমিকার প্রশংসা করেন।

পিএইপি স্টিল কমপ্লেক্সে রাষ্ট্রদূতদ্বয় বিকেল সাড়ে তিনটা পর্যন্ত অবস্থান করেন। এ সময় ইন্দোনেশিয়া দূতাবাসের কাউন্সিলর আবদুল নাজারও তাদের সঙ্গে ছিলেন।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ