সোমবার, জুন ১৭, ২০২৪
প্রচ্ছদরাজনীতিঘোষিত বাজেটকে কালো টাকার বাজেট বলে মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল

ঘোষিত বাজেটকে কালো টাকার বাজেট বলে মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল

ঘোষিত বাজেটকে কালো টাকার বাজেট বলে মন্তব্য করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এটি কালো টাকা সাদা করার বাজেট, লুটপাটের বাজেট।

শুক্রবার (৭ জুন) বিকেলে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

‘শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়া’র গৃহীত কর্মসূচি ও নীতি: বাংলাদেশের কৃষি বিপ্লব ও পল্লী উন্নয়নের মূল ভিত্তি ‘ শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়-ময়মনসিংহ, সোনালী দল।

ফখরুল বলেন, জিয়াউর রহমান এমন সময় ক্ষমতায় এসেছিলেন সেটি ছিল প্রতিকূল সময়ে।

তিনি দুটি প্রতিকূল সময়ে সামনে এসেছিলেন। যখন জাতি অন্ধকারে নিমজ্জিত পথ পাচ্ছে না কোন দিকে ধাবিত হবে।

সেদিন জাতিকে একজন মেজর স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিতে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষক, এটি আওয়ামী লীগ স্বীকার করুক আর না করুক।

জাতির দুটি গুরুত্বপুর্ণ সময়ে ত্রাণকর্তা হিসেবে তার আবির্ভাব হয়েছিল।
তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সমাজতন্ত্র ব্যবস্থা গঠন করতে চাইলে সে বিষয়ে কিছুই জানতো না তারা , সবাই লুটপাটে ব্যবস্থাপনায় সবাই ব্যস্ত ছিল। শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বাংলাদেশকে অন্যান্য পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছিলেন। তিনি মাঠের মানুষের কাছে গেছেন, কৃষকদের সঙ্গে হেঁটেছেন, খাল কেটেছেন। মাঠ পর্যায় থেকে তিনি উন্নয়নকে নিয়ে এসেছিলেন। এজন্য তাকে কেউ ভুলতে পারে না।

জিয়াউর রহমানের অবদান অস্বীকার করলে বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে অস্বীকার করা হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ইরাক ও ইরানের যুদ্ধ প্রশমিত করতে অবদান রেখেছে, সার্ক নিয়ে তার কত চিন্তা ছিল। অথচ একটি দল সেটিকে খেয়ে দিলো। জিয়াকে খাটো করে দেখানোর চেষ্টা করে লাভ নেই, তাকে কেউ ছোট করতে পারবে না।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ঘোষিত বাজেট কালো টাকার বাজেট, কীভাবে কালো টাকা সাদা করা যাবে, সেটির বাজেট। লুটপাটের বাজেট। বুকের ওপর চেপে থাকা দানবকে সরাতে না পারলে আমাদের কোনো পথ নেই।

আমাদের সব কিছুই বে-নজীর এখন। বাজেট থেকে শুরু করে, বেনজীর, আজিজ সবই বে-নজীর। এ থেকে বের হতে আমদের তরুণদের নামতে হবে। এ কথা আমি বারবার বলি। আমাদের সব কিছু ধ্বংস করেছে এ সরকার। এ ধ্বংসস্তূপ থেকে দাঁড়িয়ে উঠতে হবে।

আমরা কেউ হতাশ নেই, আমাদের কেউ দল ত্যাগ করেনি, কেউ দল ছেড়ে যাবেও না জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, কারণ আমরা একটা সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে আছি। আমাদের দায়িত্ব, এ দানব সরকার উৎখাত করে জনগণের প্রতিনিধিত্বশীল জবাবদিহি সরকার গঠন করতে পারি।

সোনালী দল- বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ময়মনসিংহ এর সভাপতি অধ্যাপক গোলাম হাফিজ কেনেডি’র সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো আবুল কালাম আজাদের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু, ডা এজেডএম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের সদস্য সচিব কাদের গণি চৌধুরী, ইউনিভার্সিটি টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ইউট্যাব) সভাপতি অধ্যাপক ড. এ বি এম ওবায়দুল ইসলাম, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন নসু।

আরও উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদলের সাবেক সহসভাপতি এজমল হোসেন পাইলট, চেয়ারপারসনের প্রেস উইং কর্মকর্তা শামসুদ্দিন দিদার ও যুব জাগপার সভাপতি মীর আমির হোসেন আমুসহ অনেকে।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ